Technology

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? এর সুবিধা ও ব্যবহারের নিয়ম

এইতো কয়েক বছর আগের কথা, সেই সময় আমি বেশ কিছু ইংরেজি সিনেমা তে দেখতাম যে। সেই সিনেমার মধ্যে হিরো কিংবা হিরোইন রোবটদের ভয়েস এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকারের নির্দেশ প্রদান করছে। এবং সেই নির্দেশ মতো উক্ত রোবট গুলো সঠিক ভাবে কাজ করছে। কিন্তু বর্তমান সময়ে হল আধুনিক যুগ। আর এই যুগে সবকিছু শুধুমাত্র সিনেমার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। বরং বর্তমান সময়ে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর মাধ্যমে আমরা এই প্রযুক্তি কে ব্যবহার করতে পারছি। আর ইতিমধ্যেই অনেক আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর উদ্ভব হয়েছে। যেমন, Alexa, Siri, Google Assistant ইত্যাদি।

মূলত আপনি যদি গান শোনা, কিংবা খবরের কাগজ পরা, অথবা ভিডিও প্লে করা। কিংবা আপনার কাছের কোন মানুষ কে এসএমএস করার মতো কাজ গুলো নিজের হাতে করতে না চান। তাহলে আপনার এই ধরনের কাজ গুলো করতে পারবে, গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট। আর এই কাজ টি করার জন্য আপনার নিকট তেমন কোনো ডিভাইসের প্রয়োজন হবেনা। বরং আপনার হাতের কাছে যদি একটি স্মার্টফোন থাকে। তাহলে আপনি google assistant এর মাধ্যমে খুব সহজেই এই ধরনের কাজ গুলো করতে পারবেন। আর সেই দিক থেকে বলা যায় যে, গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বিরাট একটা পরিবর্তন আনতে পেরেছে।

মূলত আজকের এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আমি আপনাকে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব। এর পাশাপাশি এই google assistant আসার পরে আমরা কি কি সুবিধা ভোগ করতে পারছি। তা নিয়েও বিশেষ ভাবে বর্ণনা করব। এবং সবশেষে আমি আপনাদের জানিয়ে দেয়ার চেষ্টা করব যে। এই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সম্পন্ন গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কিভাবে ব্যবহার করবেন। তার প্রত্যেকটা ধাপ নিয়ে স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করব। সেজন্য অবশ্যই আজকের এই আর্টিকেল টি মনোযোগ দিয়ে পড়ার চেষ্টা করবেন।

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি?

যেহেতু বর্তমান সময়ে google ইন্টারনেট জগতের জনপ্রিয় একটি নাম। সেহেতু অবশ্যই আপনি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট শব্দটি শুনে থাকবেন। মূলত এটি হলো গুগলের নিজস্ব একটি প্রোডাক্ট। যা মূলত AI এর মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে থাকে। মূলত এই গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এমন একটি প্রযুক্তি। যার মাধ্যমে আপনি সেই প্রযুক্তি কে ভয়েস দিয়ে কোন কমান্ড দিবেন। এবং আপনার সেই কমান্ড অনুযায়ী সেই google assistant কাজ করবে। আর এই বিশেষ প্রযুক্তি কে google নিজস্ব কাজে ব্যবহার করার জন্য তৈরি করেছিল। কিন্তু বর্তমান সময়ে এই বিশেষ প্রযুক্তি কে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করার ফলে। এখন আমরা আমাদের হোম ডিভাইসের মধ্যে ব্যবহার করতে পারছি।

Google Now কাকে বলে?

উপরে আলোচনা থেকে আপনি জানতে পেরেছেন যে, google assistant কি। তো এই বিষয় টি জানার পর এখন অনেকের মনে একটি প্রশ্ন জেগে থাকবে। আর সেই প্রশ্নটি হল যে, Google Now কাকে বলে। কেননা সর্বপ্রথম আমরা ভয়েস দিয়ে কমান্ড করার জন্য যে প্রযুক্তির নাম শুনেছিলাম। সেই প্রযুক্তির নাম হল, Google Now. এটি হল google এর পুরাতন একটি প্রযুক্তি। আর এই পুরাতন প্রযুক্তির উন্নত ভার্শন এর নাম হল, গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট। যদিও বা সেই পুরাতন প্রযুক্তির মধ্যে বেশ কিছু সুবিধা ভোগ করা যেত। কিন্তু সেই সুবিধা গুলোর পাশাপাশি এখন আপনি যদি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করেন। তাহলে আপনি আরো অধিক বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর কাজ কি?

দেখুন আমরা একজন মানুষ হিসেবে আমাদের হাতে থাকা মোবাইল দিয়ে যেসব কাজ করতে পারি। সেই কাজ গুলো করার জন্য স্ক্রিনের উপর আঙ্গুল দিয়ে স্পর্শ করার পর সেই কাজ গুলো সম্পন্ন হয়। কিন্তু আপনি যদি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করেন। তাহলে আপনার এই হাত দিয়ে স্পর্শ করা কাজ গুলো গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট করে দিতে পারবে। আর আপনি আসলে কোন কোন কাজ গুলো করাতে চান। সেটা আপনাকে ভয়েস এর মাধ্যমে নির্দেশ প্রদান করতে হবে। আর অবাক করার মতো বিষয় হলো, এই আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট বিভিন্ন প্রকারের কাজ করতে পারে। যেমন:

  1. আপনার ডিভাইসের মিউজিক কন্ট্রোল করা।
  2. ইন্টারনেটে সার্চ করার মাধ্যমে আপনাকে বিভিন্ন প্রকার তথ্য সম্পর্কে জানিয়ে দিতে পারবে।
  3. আপনি কোন প্রকার টাইপ করবেন না, বরং আপনি শুধুমাত্র ভয়েস দিবেন আর সেই ভয়েস থেকে নিজে থেকেই মেসেজ লিখে আপনার কাঙ্ক্ষিত নাম্বারে সেই মেসেজ পাঠিয়ে দিবে।
  4. আপনার ফোনের মধ্যে থাকা কোন অ্যাপস টি আপনি ওপেন করতে চান। গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট নিজে থেকেই সেই অ্যাপস টি ওপেন করে দিবে।
  5. আপনার স্মার্টফোনের এলার্ম সেট করার কাজ টি google assistant করে দিতে পারবে।
  6. আপনার ফোনের মধ্যে কোন প্রকার স্পর্শ ছাড়াই আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত ব্যক্তিকে কল দিতে পারবেন। অথবা সেই ব্যক্তি যদি কল করে তাহলে সেই কল টি আপনি রিসিভ করতে পারবেন।
  7. যখন আপনার ফোনের মধ্যে কোন প্রকার নোটিফিকেশন আসবে। তখন সেই নোটিফিকেশন গুলো google assistant নিজে থেকেই আপনাকে পড়ে শুনাবে।
See also  Best FREE Cloud Storage & Online Drives Free Space in the Cloud

তো আপনি যদি একান্ত ভাবেই এই google assistant এর কাজ সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে আমি আপনাকে বলব যে, এটি মূলত এন্ড্রয়েড ফোন গুলোর জন্য বিশেষ একটি ফিচার। যার মাধ্যমে মোবাইলের সাথে যুক্ত যেসব কাজ রয়েছে। সেই কাজ গুলো আপনি হাতের স্পর্শ ছাড়াই শুধুমাত্র ভয়েস দিয়ে নির্দেশ করার মাধ্যমে সেই কাজ গুলো সম্পন্ন করতে পারবেন।

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর সুবিধা কি?

তো আপনি যদি আপনার মোবাইল ফোনে গুগল এসিস্টেন্ট নামক এই আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করেন। তাহলে আপনি বেশি কিছু সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। যেমন প্রথমত আপনাকে আর হাত দিয়ে স্পর্শ করে আপনার ফোন কে ব্যবহার করতে হবে না। বরং আপনি শুধুমাত্র ভয়েস এর মাধ্যমে নির্দেশ প্রদান করবেন। আর google assistant আপনার সেই নির্দেশ মোতাবেক সঠিক ভাবে কাজ করার চেষ্টা করবে। এতে করে আপনি আপনার মোবাইল ব্যবহার করার পাশাপাশি অন্যান্য কাজ করতে পারবেন।

এগুলো ছাড়াও আপনি যদি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর মাধ্যমে আপনার ফোন কে পরিচালনা করতে চান। সেক্ষেত্রে আপনি আরো বিশেষ কিছু সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। যেমন আমরা যখন আমাদের হাতের স্পর্শ দিয়ে আমাদের ফোন কে পরিচালনা করি। তখন অনেক সময় ভুল অপশনে ক্লিক করার একটা চান্স থাকে। কিন্তু আপনি যদি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর মাধ্যমে ভয়েস কমান্ড প্রদান করেন। তাহলে কিন্তু google assistant আপনার সেই ভয়েস কমান্ড অনুযায়ী সঠিকভাবে কাজ করবে।

See also  Whatsapp will Bring New Features to Easily Find Sticker Pack

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করার নিয়ম

উপরের আলোচনা থেকে আপনি জানতে পারলেন যে, গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি। তো এই বিষয় গুলো জানার পরে এখন আপনার মনে একটি প্রশ্ন থেকে থাকতে পারে। যে এই মুহূর্তে আপনার হাতে থাকা সেই স্মার্টফোন দিয়ে কিভাবে আপনি google assistant ব্যবহার করবেন। তো আপনার মনে যদি এ ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে। তাহলে আমি এবার আপনাকে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করার নিয়ম গুলো সম্পর্কে বলব। চলুন এবার তাহলে সেই নিয়ম গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

আপনি যদি আপনার স্মার্টফোন থেকে google assistant এর সুবিধা ভোগ করতে চান। তাহলে সর্বপ্রথম আপনার স্মার্টফোনের হোম বাটন টি চেপে ধরে থাকতে হবে। আর কিছুক্ষণ আপনার ফোনের হোম বাটন টি চেপে ধরার পর। যদি আপনি গুগল এসিস্ট্যান্ট এর অপশন দেখতে পারেন। তাহলে বুঝতে পারবেন যে আপনি আপনার সেই স্মার্ট ফোন দিয়ে গুগল এসিস্ট্যান্ট কে ব্যবহার করতে পারবেন। আর যদি আপনি কোন প্রকার অপশন দেখতে না পান। তাহলে বুঝতে হবে যে, আপনার সেই স্মার্ট ফোন দিয়ে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করা যাবে না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button